সড়কে বেড়েছে যান চলাচল, নেয়া হচ্ছে বাড়তি ভাড়া!

দেশের রপ্তানিমুখী সকল শিল্প-কারখানা আজ রোববার (১ আগস্ট) থেকে খুলে দেওয়ায় শ্রমিকরা কর্মস্থ‌লে ফেরা শুরু করেছেন। তবে গণপরিবহন চালু হওয়ায় সড়কে যানবাহনের চাপ বেড়েছে। ফলে ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে যাত্রীদের। অভিযোগ রয়েছে বাড়তি ভড়া আদায়ের। এরআগে গতকাল শনিবার চলমান বিধি-নিষেধের মধ্যে শ্রমিকদের আসার জন্য গণপরিবহন ও লঞ্চ আজ দুপুর পর্যন্ত চলাচলের ঘোষণা দেওয়া হয়। গণপরিবহন চালুর খবরে ঢাকাগামী কলকারখানায় কর্মরত কর্মজীবী মানুষের ভিড় ছিল চোখে পড়ার মতো।

সরেজমিনে রোববার (১ আগষ্ট) সকাল থেকে রাজধানীতে প্রবেশের বিভিন্ন পয়েন্টে এমন চিত্র দেখা গেছ।

যাত্রীদের অভিযোগ বাসে মানুষও বেশি নেওয়া হচ্ছে, অপর দিকে ভাড়াও বেশি নেওয়া হচ্ছে। অতিরিক্ত ভাড়া নিলেও কোন সিট খালি রাখা হয়নি। এমনকি দাঁড়িয়েও যাত্রী টানছেন পরিবহনগুলো। অতিরিক্ত যাত্রী নিয়ে স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষা করেই গণপরিবহন চলছে। একদিকে করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি, অন্যদিকে বাড়তি ভাড়ায় চরম বিড়ম্বনায় পড়তে হচ্ছে যাত্রীদের।

গার্মেন্টস খোলা এবং লঞ্চ চলাচল শুরু হওয়ার খবরে সকাল থেকেই যাত্রীদের ঢল নেমেছে। এদের মধ্যে বেশির ভাগ যাত্রী ছিলেন পোশাক শ্রমিক। সরকার রপ্তানিমুখী শিল্পের শ্রমিক ও সংশ্লিষ্টদের কাজে যোগদানের সুবিধার্থে সব ধরনের গণপরিবহন ১৬ ঘণ্টার জন্য চালু করায় আজও ঢাকামুখী শ্রমজীবী মানুষের ঢল রাজধানীর প্রবেশ দ্বার যাত্রাবাড়ী-চিটাগং রোড ও যাত্রাবাড়ী-মাওয়া।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বেশিরভাগ পরিবহনে স্বাস্থ্য বিধি মানছে না। প্রতিটি আসেন যাত্রীতো রয়েছেই, এমনকি দাঁড়িয়েও যাত্রী নেওয়া হচ্ছে। যাত্রীদের অভিযোগ প্রতিটি আসনে যাত্রী নেওয়া হয়েছে, এমনকি ভাড়াও বেশি নেওয়া হয়েছে। প্রতি আসনে যাত্রী নেওয়ার পর অতিরিক্ত ভাড়া নেওয়া হচ্ছে কেন জানতে চাইলে বাসের এক কন্ডাক্টর বলেন, অর্ধ বেলা গাড়ি চালাচ্ছি একটু বেশিতো নিতেই হবে।

অপরদিকে রপ্তানিমুখী শিল্পের শ্রমিক ও সংশ্লিষ্টদের কাজে যোগদানের সুবিধার্থে সব ধরনের গণপরিবহন ১৬ ঘণ্টা চালু করা হয়।
শনিবার (৩১ জুলাই) রাতে সরকারি এক তথ্য বিবরণীতে জানানো হয়, রপ্তানিমুখী শিল্পের শ্রমিক ও সংশ্লিষ্টদের কাজে যোগদানের সুবিধার্থে ১ আগস্ট দুপুর ১২টা পর্যন্ত গণপরিবহন চালু রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *