টি-২০ বিশ্বকাপে ব্যাটসম্যান থাকছে না যাদের

লিঙ্গ নিরপেক্ষতা প্রতিষ্ঠার জন্য আইসিসি “ব্যাটসম্যান” এর পরিবর্তে “ব্যাটার” শব্দটি ব্যবহার করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এটি আসন্ন টি -টোয়েন্টি বিশ্বকাপ থেকে কার্যকর হবে।

আগামী ১৯ অক্টোবর ওমান এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতে শুরু হতে যাচ্ছে আইসিসি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। এই টুর্নামেন্ট দিয়েই সকল ধরনের ক্রিকেটে ব্যাটার শব্দটির ব্যবহার শুরু হতে যাচ্ছে।

গত মাসে ক্রিকেটের আইনপ্রণেতা সংস্থা মেরিলেবোন ক্রিকেট ক্লাব (এমসিসি) ঘোষণা দেয় যে তারা ব্যাটসম্যান শব্দটির পরিবর্তে ব্যাটার ব্যবহার করবে। এমসিসি আরও জানায় ক্রিকেট খেলাটি সবার জন্যই এবং এখানে এমন শব্দ ব্যবহার করতে হবে যেগুলো লিঙ্গ নিরপেক্ষ।

গতমাসে ব্যাটার শব্দটি ব্যবহারের প্রসঙ্গে এমসিসির ক্রিকেট ও অপারেশন্স বিষয়ক সহকারী সচিব জেমি কক্স জানান, ‘এমসিসি বিশ্বাস করে ক্রিকেট খেলাটি সবার জন্যই এবং আধুনিক যুগে খেলাটির বদলে যাওয়া চিত্রকেই তুলে ধরছে এই পদক্ষেপ।’

‘ক্রিকেটীয় ভাষায় ব্যাটার শব্দটির ব্যবহার এখন সময়োপযোগী। এটাই উপযুক্ত সময় এই সিদ্ধান্তটিকে আনুষ্ঠানিকভাবে স্বাগত জানানোর। আজ এটার ঘোষণা দিতে পেরেও আমরা দারুণ উচ্ছ্বসিত।’

আগে নারীদের ক্রিকেটে ব্যাটসম্যানের পরিবর্তে ব্যাটার ব্যবহার করা হত। কিন্তু এখন থেকে সকল ধরনের ক্রিকেটেই ব্যবহৃত হবে ব্যাটার শব্দটি। এ প্রসঙ্গে আইসিসি জানায় গত চার বছর ধরেই তারা ব্যাটার শব্দটি ব্যবহার করে আসছেন এবং সেটা তাদের ধারাভাষ্য প্যানেল এবং ওয়েবসাইটগুলোতেও প্রতিফলিত হচ্ছে। আসন্ন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে সকল ক্ষেত্রে এই শব্দটির ব্যবহার সবার জন্যই হতে যাচ্ছে একটি নতুন পরিবর্তন।

এ প্রসঙ্গে আইসিসির ভারপ্রাপ্ত সিইও জিওফ অ্যালারডাইস এক বিবৃতিতে জানান, ‘আইসিসি ব্যাটার শব্দটিকে বেশ কিছুদিন ধরেই ব্যবহার করে আসছে বিভিন্ন চ্যানেল এবং ধারাভাষ্য প্যানেলে। ক্রিকেটের আইনে এটিকে অন্তর্গত করার যে সিদ্ধান্ত এমসিসি নিয়েছে সেটিকে আমরা অবশ্যই স্বাগত জানাচ্ছি।’

‘এখন থেকে বোলার, ফিল্ডার এবং উইকেটকিপার শব্দগুলোর মত ব্যাটার শব্দটিও লিঙ্গ নিরপেক্ষ হয়ে গেল।’

সানরাইজার্স হায়দরাবাদের বিপক্ষে নিজেদের শেষ ম্যাচের আগে কঠিন সমীকরণের সামনে অবস্থান করছে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স। প্লে-অফ খেলার সম্ভাবনা একেবারে নিভে না গেলেও সেই আশা একেবারেই মিটমিট করে জ্বলছে আসরের পাঁচ বারের চ্যাম্পিয়নদের। শেষ চারে উঠতে এক কথায় অসম্ভবকে সম্ভব করতে হবে রোহিত শর্মাদের।

এ ছাড়া প্লে-অফ নিশ্চিতে প্রথম শর্ত হিসেবে টস ভাগ্যও নিজেদের পক্ষে থাকতে হবে মুম্বাইয়ের। এ দিন হায়দরাবাদের বিপক্ষে অবশ্যই আগে ব্যাটিং করতে হবে রোহিতদের। হায়দরবাদের অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন টসে জিতে আগে ব্যাটিং নিলে বল মাঠে গড়ানোর আগেই ধুলিস্মাৎ হয়ে যাবে মুম্বাইয়ের শেষ চারে ওঠার স্বপ্ন।

ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে (আইপিএল) ১৩ ম্যাচ শেষে ছয়টি জয়ে ১২ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের ছয় নম্বরে অবস্থান করছে মুম্বাই। আর ১৪ ম্যাচে সাতটি জয়ে ১৪ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের চার নম্বরে থাকায় প্লে-অফে এক পা দিয়ে রেখেছে কলকাতা নাইট রাইডার্স। তাছাড়া ইয়ন মরগানের দল রানরেটে কয়েক গুণ এগিয়ে থাকায় শেষ ম্যাচে শুধু জিতলেই চলবে না মুম্বাইকে।

শুক্রবার (৮ অক্টোবর) হায়দরাবাদের বিপক্ষে আগে ব্যাটিং করার পাশাপাশি আরো কঠিন একটি শর্ত পূরণ করতে হবে তাদের। এই ম্যাচে অন্তত ১৭১ রানে জিততে হবে ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়নদের। এসব অবিশ্বাস্য শর্ত পূরণ করতে পারলে তবেই মিলবে শেষ চারের টিকিট।

এমন পাহাড় সমান রানের ব্যবধানে জিততে ২০১৭ সালের দিল্লি ক্যাপিটালসের বিপক্ষে ম্যাচের ফর্ম ফিরিয়ে আনতে হবে মুম্বাইকে। সেবার দিল্লিকে ১৪৬ রানে হারিয়েছিল মুকেশ আম্বানির মালিকানাধীন ফ্র্যঞ্চাইজিটি। আইপিএলে ইতিহাসে এত বড় রানের জয়ের কীর্তি করে দেখাতে আর কোনো দল।

এবারের আইপিএলে শেষ চারের টিকিটি আগেই নিশ্চিত করেছে দিল্লি, চেন্নাই সুপার কিংস ও রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু। আর আসরের প্রথম দল হিসেবে পে-অফের লড়াই থেকে সবার আগে ছিটকে পড়েছে হায়দরাবাদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.