টেস্ট সিরিজ না খেলায় হঠাৎ সাইফউদ্দিনকে বড় ধরনের সুখবর শোনালেন বিসিবি

বাংলাদেশ জাতীয় দলের পেস বোলিং অলরাউন্ডার সাইফউদ্দিন টেস্ট খেলেন না।এমনকি সাইফউদ্দিন টেস্টের বোলারও নয়।তাই বাংলাদেশ দলের এই তারকা ক্রিকেটারকে টেস্ট দলের সাথে দেখাটা একেবারেই বিস্ময়করই বলা চলে।

তবে প্রশ্ন একটা থেকে যায় সাইফউদ্দিন কি বাংলাদেশ, জিম্বাবুয়ে আর আফগানিস্তানকে নিয়ে যে তিন জাতি-টি টোয়েন্টি ক্রিকেট হবে, তাতে অংশ নিতে পারবেন? ত্রিদেশীয় সিরিজ শুরুর আগেই ইনজুরি কাটিয়ে সম্পূর্ণ ফিট হয়ে উঠতে পারবেন এ পেস বোলিং অলরাউন্ডার।

আজ কন্ডিশনিং ক্যাম্পের প্রথম দিন দুপুরে ট্রেনার মারিও ভিল্লাভারায়নের কথা শুনে মনে হচ্ছিলো সাইফউদ্দিন শতভাগ না হলেও মোটামুটি সুস্থ। কিন্তু ঠিক দুপুরে প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নু জানালেন অন্য কথা। সেটা শুনে মনে হলো দুজনার ভাষ্য দুরকম।

মিনহাজুল আবেদিন নান্নুর কথা শুনে মনে হলো সাইফউদ্দিন এখনও সুস্থ্ নন। সেই বিশ্বকাপের মাঝামাঝি সময় থেকে যে ইনজুরি বয়ে বেড়াচ্ছেন এ পেস বোলিং অলরাউন্ডার, তা এখনও কাটিয়ে ওঠেননি এবং উঠতে আরও সময় লাগবে।

নান্নু পরিষ্কার জানিয়ে দিয়েছেন, সাইফউদ্দিন এখন যে কন্ডিশনিং ক্যাম্পে যোগ দিয়েছেন, তাতে শুধু ফিজিক্যাল ট্রেনিং আর রানিং করতে পারবে।

কোন ক্রিকেটীয় কর্মকান্ড তথা ব্যাটিং ও বোলিং করতে পারবে না। এবং সেটা আজ কাল বা দু এক দিনের মধ্যেও সম্ভব না। অন্তত আরও এক সপ্তাহ অপেক্ষায় থাকতে হবে। সাতদিন পর ডাক্তার তার অবস্থা বুঝে জানাবেন।

এবার অবশ্য শ্রীলঙ্কা সিরিজের অনুশীলন মাঠে সেই অচেনা দৃশ্য দেখা গেল।বিশ্ব খ্যাত নামা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানের নেটে লাল বলে বোলিং করেন ডানহাতি এ অলরাউন্ডার।

তবে অবশেষে জানা যায় সাইফউদ্দিনকে নেটে আনার মুল কারণ তার ফিটনেস পরিক্ষার জন্য।

এদিকে শ্রীলঙ্কা সিরিজ শেষেই সিরিজ খেলতে বাংলাদেশ দল উড়াল দিবে ওয়েস্ট ইন্ডিজে।আর এই ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরের দলে ফেরাতেই ২৫ বছর বয়সী এ অলরাউন্ডারকে পরখ করে দেখা।

বাংলাদেশ দলের অন্যতম পেস বোলিং অলরাউন্ডার যদিও আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে পরীক্ষিত।তিনি ফিট থাকলে সীমিত ওভারের ক্রিকেটে নিয়মিত খেলেন।এদিকে চোটের কারণে টি২০ বিশ্বকাপের পর থেকে জাতীয় দলে খেলার সুযোগ পান না তিনি।

তার গুরুতর চোট নিয়েই টুর্নামেন্টের মাঝপথে দেশে ফিরে আসেন তিনি।এদিকে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ বিপিএলেও খেলতে পারেননি পুনর্বাসনে থাকায়।যদিও চোট কাটিয়ে ডিপিএলের খেলার সুযোগ পান তিনি।

আর ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে দুর্দান্ত পারফরম্যান্স করলেও জাতীয় দলের সাথে না থাকায় নতুন পেস বোলিং কোচ অ্যালান ডোনাল্ডের কাছে অপরিচিত ছিলেন সাইফউদ্দিন। সে কারণেই টেস্ট দলের নেটে ফিটনেসের পাশাপাশি বোলিং করানো হয় তাকে।

প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু বলেন, ‘ও যেহেতু লিগে খেলেছে। ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে ওয়ানডে এবং টি২০ দলে নিতে হলে ফিটনেস দেখতে হতো। ফিটনেস নিয়ে কোনো সমস্যা নেই। নেটে বোলিংও ভালো করেছে।’

গতকাল ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরের টেস্ট, ওয়ানডে এবং টি২০ দল নিয়েও মিটিং টিম ম্যানেজমেন্টের সঙ্গে বৈঠক করেন নির্বাচকরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published.