বার্সেলোনার নতুন হোম ভেন্যু অলিম্পিক স্টেডিয়াম!

বদলে যাচ্ছে বার্সেলোনার হোম ভেন্যু! ক্যাম্প ন্যু সংস্কারে থাকায় ২০২৩-২৪ মৌসুমে কাতালান ক্লাবটির সব হোম ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে অলিম্পিক স্টেডিয়ামে। ভেন্যু পরিবর্তনে স্প্যানিশ জায়ান্টদের ব্যয় করতে হবে প্রায় ১৫-২০ মিলিয়ন ইউরো। নতুন ভেন্যুতে খেলার জন্য নগরের মেয়রের সঙ্গে আনুষ্ঠানিক চুক্তিও সম্পন্ন করেছেন বার্সা সভাপতি হুয়ান লাপোর্তা।

ক্যাম্প ন্যু আর বার্সেলোনা যেন একই সূত্রে গাঁথা। ৬৪ বছর ধরে এই ক্যাম্প ন্যু সাক্ষী হয়েছে নানা ইতিহাসের। কাতালান ক্লাবটির দীর্ঘ যাত্রার অনেকটা জুড়েই এই স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হয়েছে হোম ম্যাচ। তবে এবার ভেন্যু পরিবর্তনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বার্সা কর্তৃপক্ষ।

১৯৫৭ সাল থেকে ক্যাম্প ন্যুতে খেলে আসছে বার্সেলোনা। এরপর তিন দফায় স্টেডিয়ামটিতে সংস্কার হয়েছে। গত মার্চে মিউজিক স্ট্রিমিং অ্যাপ স্পটিফাইয়ের সঙ্গে ৩১০ মিলিয়ন ডলারের স্পন্সর চুক্তি করে বার্সা কর্তৃপক্ষ। এরপর ঐতিহাসিক ভেন্যুটি সংস্কারের উদ্যোগ নেয়া হয়। যার কিছু কাজ এরই মধ্যে শুরু হয়ে গেছে। এ কারণেই হোম ম্যাচের ভেন্যু পরিবর্তন করতে যাচ্ছে কাতালান ক্লাবটি।

স্টেডিয়ামের সংস্কার কাজের জন্য আগামী ২০২৩-২৪ মৌসুমে হোম ম্যাচগুলো অনুষ্ঠিত হবে বার্সেলোনার অলিম্পিক স্টেডিয়ামে। ১৯২৭ সালে প্রতিষ্ঠিত হওয়া স্টেডিয়ামটিতে ১৯৯২ অলিম্পিক ছাড়াও হয়েছে বেশ কিছু আন্তর্জাতিক ক্রীড়া ইভেন্ট অনুষ্ঠিত হয়েছে।

এরই মধ্যে কাতালান সিটি মেয়রের সঙ্গে ভেন্যু পরিবর্তনের আনুষ্ঠানিকতাও শেষ করেছে বার্সা কর্তৃপক্ষ। খেলোয়াড়দের যাতায়াত খরচ, ভেন্যুর উন্নয়নসহ নানা সুযোগ সুবিধা নিশ্চিতকরণে ব্যয় হবে ৭.২ মিলিয়ন ইউরো।

এর ৬৪ শতাংশ খরচ বহন করবে বার্সেলোনা ক্লাব কর্তৃপক্ষ। বাকি ২.৬ মিলিয়ন ইউরো খরচ করবে সিটি কাউন্সিল। এছাড়া ড্রেসিংরুমের উন্নয়নসহ সামগ্রিক কার্যক্রমে বার্সার মোট খরচ ১৫ থেকে ২০ মিলিয়ন ইউরো খরচ হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

এর আগে ১৯৯৭-২০০৯ পর্যন্ত লুইস কোম্পানিস অলিম্পিক স্টেডিয়াম হোম ভেন্যু হিসেবে ব্যবহার করে আরেক কাতালান ক্লাব এস্পানিওল। এই অলিম্পিক স্টেডিয়াম স্পেনের পঞ্চম বৃহত্তম ভেন্যু হিসেবেও পরিচিত। ক্যাম্প ন্যু’র দর্শক ধারণ ক্ষমতা এক লাখ হলেও, অলিম্পিক স্টেডিয়ামে মাঠে বসে খেলা দেখতে পারবেন ৬০ হাজার ৭১৩ জন দর্শক।

২০২৩-২৪ এর পরের মৌসুম, অর্থাৎ ২০২৪-২৫ মৌসুমেই ক্যাম্প ন্যুতে ফিরবে বার্সা। যদিও ধারণ ক্ষমতার ৫০ শতাংশ দর্শক মাঠে বসতে পারবে। আর ২০২৫-২৬ থেকে নতুন রুপের ক্যাম্প ন্যু’র ১ লাখ ১০ হাজার দর্শক মাঠে বসে উপভোগ করবে প্রিয় দলের খেলা।

এর আগে সান্তিয়াগো বার্নাব্যুর সংস্কার কাজের জন্য রিয়াল মাদ্রিদ পরিবর্তন করেছিল নিজেদের হোম ভেন্যু।

Leave a Reply

Your email address will not be published.