সোহানের জুয়ায় মোসাদ্দেকের অনন্য রেকর্ড

প্রথম টি-টোয়েন্টির ধারাবাহিকতায় দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতেও টস হেরেছেন অধিনায়ক সোহান। টস হেরে ফিল্ডিং করতে নেমে অবশ্য অবাক করে দিয়েছেন সবাইকে। দলের স্পেশালিস্ট বোলারদের রেখে বল তুলে দিয়েছেন ব্যাটিং অলরাউন্ডার মোসাদ্দেক হোসেনের হাতে।

টাইগার অধিনায়কের সাহসী সিদ্ধান্ত চমকে দিয়েছিল হয়তো জিম্বাবুইয়ানদেরও। তাইতো এই পার্টটাইমারের হাতে একে একে সাজঘরে ফিরেছেন জিম্বাবুয়ের প্রথম পাঁচ ব্যাটার। আগের ম্যাচেই বোঝা গিয়েছিল জিম্বাবুইয়ানদের বধ করতে ঘূর্ণি বলই হতে পারে টাইগারদের আশ্রয়।

তাই বলে এমন জুয়া খেলবেন সোহান তা কেউ ভাবেনি। প্রথম ওভারেই যে বল তুলে দিলেন স্পিনারের হাতে। তার চেয়ে বড় ব্যাপার, সে স্পিনার আবার নিয়মিত বোলারও নন। মোসাদ্দেক হোসেন স্পিনটা করতে পারলেও তার মূল পরিচয় তো ব্যাট হাতেই। তবে অধিনায়কের আস্থার প্রমাণ দিতে দেরি করেননি।

বল করতে এসে প্রথম বলেই তিনি ফিরিয়েছেন রেজিস চাকাবাকে। উইকেটকিপার সোহানের ক্যাচে পরিণত করে মোসাদ্দেক যে ম্যাজিক স্পেলের সূচনা করেন, তারপর চার ওভার শেষে তিনি টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশের পক্ষে দ্বিতীয় সেরা বোলিং ফিগারের মালিক হয়েই থেমেছেন। আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারে প্রথমবারের মতো পাঁচ উইকেট নিয়েছেন তিনি।

প্রথম বলে চাকাবাকে দিয়ে শুরু। সে ওভারের শেষ বলে উইকেট নিয়েছেন আরও একটিও। এবারের শিকার মাদভেরে। নিজের দ্বিতীয় ওভারে আবার বোলিংয়ে এসে সৈকত ফিরিয়ে দেন ক্রেগ আরভিনকে।

আরভিন ক্যাচ দেন লিটন দাসকে। তিনি নেন শন উইলিয়ামস ও মিল্টন শুম্বার উইকেটও। এদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি রান করেন উইলিয়ামসম, তা-ও সেটা ৮। ২০ রানের বিনিময়ে এই পাঁচ উইকেট নিয়ে এটাই তার ক্যারিয়রের সেরা পারফরম্যান্স। শুধু তাই নয়, বাংলাদেশের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টিতে যৌথভাবে এটাই দ্বিতীয় সেরা পারফরম্যান্স।

টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশের হয়ে সেরা পারফরম্যান্সের রেকর্ড বাঁহাতি স্পিনার ইলিয়াস সানির দখলে। ২০১২ সালে, বেলফাস্টে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে এই বাঁহাতি ১৩ রানে ৫ উইকেট নিয়েছিলেন।

মোসাদ্দেকের সঙ্গে যৌথভাবে দুইয়ে আছেন আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টির সর্বোচ্চ উইকেটের মালিক সাকিব আল হাসান। ২০১৮ সালে মিরপুরে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তিনি ২০ রানে ৫ উইকেট শিকার করেন।

সেরা পারফরম্যান্সের জায়গায় দুইয়ে থাকলেও একটা জায়গায় মোসাদ্দেক বাংলাদেশের প্রথম। আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশের আর কোন বোলারের নেই একাই প্রতিপক্ষের প্রথম পাঁচ উইকেট শিকারের কৃতিত্ব। এখানে তিনিই প্রথম এবং একমেবাদ্বিতীয়ম।

মোসাদ্দেকের টি-টোয়েন্টি অভিষেকও হয়েছিল জিম্বাবুয়ের বিপক্ষেই। সে ম্যাচে দু ওভার বল করে ১০ রান দিয়ে উইকেতশূন্য ছিলেন তিনি। এর আগে খেলা ১৯ টি-টোয়েন্টি ম্যাচে তার উইকেটের সংখ্যা ছিল মাত্র ৭টি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *