ঢাবি খুলবে অক্টোবরেই

আগামী ১২ সেপ্টেম্বর থেকে দেশের সব প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিকের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলছে। একইসঙ্গে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ চাইলে এদিন থেকে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোও খুলে দিতে পারবে বলে জানিয়েছে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। শুক্রবার (৩ সেপ্টেম্বর) শিক্ষামন্ত্রী সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানিয়েছেন। দেশের সব প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিকের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুললেও বন্ধই থাকছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি)। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রভোস্ট কমিটির সভায় নেওয়া সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ক্যাম্পাস খোলা হবে বলে জানিয়েছেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্তের পর গণমাধ্যমে দেয়া এক প্রতিক্রিয়া ঢাবি

কর্তৃপক্ষ চাইলে ১২ সেপ্টেম্বর থেকেও খুলতে পারে বিশ্ববিদ্যালয়: শিক্ষামন্ত্রী

করোনা সংক্রমণ নিম্নমুখী হওয়ায় দীর্ঘ প্রায় দেড় বছর ধরে বন্ধের পর আগামী ১২ সেপ্টেম্বর থেকে প্রাথমিক থেকে উচ্চমাধ্যমিক স্তর পর্যন্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। ওই দিনই উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোও (বিশ্ববিদ্যালয়) খুলে দেওয়া যেতে পারে বলে মন্তব্য করেন তিনি। আজ শুক্রবার (৩ সেপ্টেম্বর) চাঁদপুরের মহামায়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নবনির্মিত ভবনের উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন তিনি। এ প্রসঙ্গে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর সিন্ডিকেট এবং অ্যাকাডেমিক কাউন্সিল চাইলে অন্যান্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের

বিশ্ববিদ্যালয়ও সেপ্টেম্বরে খুলে দিতে অনুরোধ করবেন শিক্ষামন্ত্রী

আগামী ১২ সেপ্টেম্বরে প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক স্কুল-কলেজের সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোও খুলে দেয়ার জন্য অনুরোধ করবেন বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। শুক্রবার (০৩ সেপ্টেম্বর) রাতে সংবাদমাধ্যমে দেয়া সাক্ষাৎকারে শিক্ষামন্ত্রী এ কথা জানান। শিক্ষামন্ত্রী বলেন, আগামী সপ্তাহে কর্তৃপক্ষের সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয় খোলার ব্যাপারে তাদের সিদ্ধান্ত কী তা জানতে বৈঠক করবো। আমরা ১২ সেপ্টেম্বরে প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক স্কুল-কলেজ খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছি। এর আগে, এদিন সকালে প্রায় দেড়বছর পর আগামী ১২ সেপ্টেম্বর থেকে প্রাথমিক,

পুরোপুরিভাবে স্কুল-কলেজ খোলা নিয়ে যা জানালেন মাউশি মহাপরিচালক

মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা (মাউশি) অধিদপ্তরের মহাপরিচালক সৈয়দ মো. গোলাম ফারুক জানিয়েছেন, ‘পুরোপুরিভাবে এখনই স্কুল-কলেজ চালু করতে পারব না। এর জন্য অ্যাসাইনমেন্টের গুরুত্বটা থেকে যাবে এবং অ্যাসাইনমেন্ট আস্তে আস্তে বাড়বে। কারণ, অ্যাসাইমেন্টের মধ্যে টিচিং, লার্নিং ও অ্যাসেসমেন্ট এই তিনটা বিষয় থাকে।’ শুক্রবার (৩ সেপ্টেম্বর) বিকেলে মানিকগঞ্জ শহরের খানবাহাদুর রহমান আওলাদ হোসেন খান কলেজ মিলনায়তনে জেলার স্কুল-কলেজের প্রধান শিক্ষকদের সাথে এক মতবিনিময় সভায় তিনি এসব কথা বলেন। মাউশি মহাপরিচালক বলেন, ‘জেলার অনেক বিদ্যালয়ে এখনও অনেক সমস্যা

চিন্তায় ভোটার উপস্থিতি, ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রে কড়া নিড়াপত্তা

সিলেট-৩ (দক্ষিণ সুরমা-ফেঞ্চুগঞ্জ-বালাগঞ্জ) আসনের উপনির্বাচন শনিবার (৪ আগস্ট) অনুষ্ঠিত হবে। করোনা মহামারীর কারণে দফায় দফায় পেছানোর পর অবশেষে এ নির্বাচনে ভোটগ্রহণ হচ্ছে। সবগুলো কেন্দ্রে ভোট হবে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) পদ্ধতিতে। তবে ভোটার উপস্থিতি নিয়ে চিন্তায় প্রার্থীরা। নির্বাচন নিয়ে সাধারণ মানুষের মধ্যে খুব একটা আগ্রহ-উদ্দীপনা না থাকলেও প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী তিন প্রার্থী জয় পেতে মরিয়া। তফসিল ঘোষণার পর থেকে তারা নির্বাচনী এলাকার তিন উপজেলায় সভা-গণসংযোগ করে ভোটারের মন জয়ের চেষ্টা করেছেন। আওয়ামী লীগ প্রার্থী হাবিবুর রহমান